আমার পরিচয়, আমাদের পরিচয়: বাসুদেব

205582_474405682600578_1014222552_n

আমি বাসু। বাসুদেব চ্যাটার্জী। আমি আর পার্থ বন্ধু। শুধু বন্ধু বললে কম বলা হয়। আমরা হরিহর আত্মা। আমি আর পার্থ সেই কলেজ থেকে বন্ধু। কলেজ পেরিয়ে ভার্সিটি। ভার্সিটি পেরিয়ে কর্মজীবন। আমাদের রাস্তা হয়তো আলাদা কিন্তু চিন্তা, রুচি, মেজাজ সব এক।

একটু হিসেব করি। আজ ২৮ অক্টোবর ২০১৫। আজকের তারিখে আমার বয়স ২৮ বছর ০৫ মাস ২৩ দিন। আর পার্থ’র ২৭ বছর ০৫ মাস ২৩ দিন। কারন কাতালীয়ভাবে আমাদের দু’জনের জন্মতারিখ এক। ০৫ মে। পার্থক্য শুধু আমার জন্মসাল ১৯৮৭ আর পার্থ’র ১৯৮৮। আমাদের প্রথম দেখা হয়েছিলো ২০০২ সালের ০১ মে। সেই হিসেবে আমাদের সম্পর্কের বয়স ১৩ বছর ০৫ মাস ২৭ দিন।

এই দীর্ঘ সময়ে আমাদের অনেক গল্প, অনেক কেচ্ছা, অনেক ফ্যান্টাসী, অনেক পথচলা।
পরীর সাথে আমার পরিচয় পার্থর সাথে পরী’র পরিচয়ের ঠিক একদিন পর। সেই থেকে পরীর সাথে আমার সম্পর্কের শুরু। তাও আজকের তারিখের হিসেবে ০৫ বছর ০৬ মাস ১০ দিন। কেননা, ২০১০ সালের ১৭ এপ্রিল পার্থ আর পরী’র পরিচয় হয়েছিলো।

পার্থ, পরী, আমি ছাড়াও আমাদের গল্পে আরও কয়েকটি চরিত্র আছে।

  • তাদের একজন তপেশ।
  • একজন লিমা।
  • একজন আরিয়ান।
  • একজন সাদমান।
  • একজন রাঙাদিদি।

 

FILE7555তপেশ এর অন্য নাম পার্থ। পরীর সাথে এই দ্বিতীয় পার্থ বা তপেশের কথা হয় বাংলালিংক মেসেঞ্জারে। ২০১১ তে। কীভাবে হয় সেই গল্প পরী ভালো বলতে পারবে। আমি জানি যে, পার্থ নাম শুনেই তপেশের প্রতি আগ্রহ পেয়েছিলো পরী। পরী আর তপেশ শুধু মোবাইলে মেসেজ চালাচালি বা চ্যাট করতো, কখনো তাদের দেখা হয়নি। আমার সাথে তপেশের প্রথম দেখা হয় ২০১৩ তে। তার আগে তার সর্ম্পকে পরী যা জানে সব আমিও জানি। তার গল্প শুনেছি পরীর কাছে। ২০১৩ তে কীভাবে দেখা হয়, কী হয় সেই গল্প বলবো বিস্তারিত। অন্য জায়গায়।

 

 

248293_475256649182148_1314246984_nলিমা আমার অনেকদিনের বন্ধু। প্রায় ৭ বছরের বন্ধুত্ব আমাদের। লিমাকে নিয়ে আমার অনেক গল্প। সেগুলো একে একে বলবো সময় করে। আমার সাথে যেহেতু লিমার বন্ধুত্ব ৭ বছরের, সূতরাং স্বাভাবিক কারনেই লিমার সাথে পার্থরও বন্ধুত্ব হয়। পার্থ-লিমার বন্ধুত্বের বয়সও ৭ বছর। তবে, আমার সাথে লিমার যতোটা পিরীত, পার্থর সাথে ঠিক ততোটা নয়। তার কারন, পার্থ দূরে থাকে অনেকদিন ধরে। আমি আর লিমা কাছাকাছি থাকি। আমাদের দেখা হয়, কথা হয়, আড্ডা হয়। কিন্তু পার্থ-লিমা দেখা হয় অনে কম। আর লিমা মোবাইলে লম্বা সময় বলতে খুব একটা পছন্দ করেনা। ফলে, পার্থ-লিমার মোবাইল আলাপও কম হয়। তবে পরীর সাথে লিমার পিরিতটা অনেত জমে গেছে। দুটোতে গলায় গলায়। যেনো এটি অপরটির ভেতরে থাকে সমসময়। এটা দারুন লাগে। আমি-লিমা-পরীতে আড্ডাও দিয়েছি প্রচুর, একসাথে, একঘরে, এক বিছানায় ঘন্টার পর ঘন্টা আমরা সময় কাটিয়েছি গল্পে, ফাজলামিতে।

FILE7555

 

আরিয়ান পরীর ফ্যান্টাসীর নায়ক। তাদের দেখা হয়নি এখনও। তবে ফেসবুকের কল্যানে একজন আরেকজনের নারী-নক্ষত্র সব জানে। ছবির মাধ্যমে একজন আরেকজনের শরীরকে চিনেছে অনেক আগেই। কিন্তু কী এ অজানা কারনে পরী-আরিয়ানের দেখা হয়নি আজো। ফলে আর কিছুও তো বকেয়াই।

 

FILE7555

সাদমান পরীর পাগলা প্রেমিক। এতো পাগলা যে, মাথা নষ্ট করে দেয়। তাদের ফেসবুকে পরিচয়। ফেসবুকে আড্ডা। কিন্তু অনেকদিন পর্যন্ত তাদের দেখা হয়নি। এদিকে সাদমান পরীকে দেখার জন্য নানা পাগলামি শুরু করেছে। শেষে পরী পরিচয়ে তার সাথে দেখা হলো লিমার। সেই সাক্ষাতে আমিও লিমার সাথে ছিলাম। সেই থেকে সাদমান জানতো লিমাই পরী। কিন্তু সাদমানের মতো পাগলা প্রেমিকের অত্যাচারে লিমা কয়েদিনেই অতিষ্ট হয়ে গেলো। শেষতক পরীকেই সামলাতে হলো সাদমানকে। সাদমান এখন মাঝে মাঝে দেখা সাক্ষাত করতে আসে পরীর সাথে। সেই সুবাদে আমাদের সাথেও  দেখা হয়, আড্ডা হয়। তাএ নিয়েও আমার কিংবা আমাদের অনেক গল্প।

 

 

248293_475256649182148_1314246984_nএই তালিকার সবশেষে আছে রাঙাদিদি। রাঙাদিদি আমার এক্স গার্লফ্রেন্ড। আমাদের রিলেশানটা আপোষের মাধ্যমেই শেষ হয়েছে। রাঙাদি আর আমার প্রেম নিয়ে অনেক অনেক গল্প আছে বলার। বলবো একে একে। রাঙাদি যেহেতু আমার গার্লফ্রেন্ড, সেহেতু লিমার ভালো বন্ধু। পরীরও। তবে পরীর চেয়ে লিমার সাথে রাঙাদির বেশি ভালো সম্পর্ক। এটা একটা আজব ব্যপার। অল্প একটু বলি। রাঙাদি ভাবতো পরীর প্রতি আমার আলাদা আকর্ষন বা যৌন প্রবণতা আছে। এমনকি সে ভাবতো, তাকে ফাঁকি দিয়ে আমি পরীর সাথে মাআমাখি করি। তাকে বিশ্বাস করাতেই পারতাম না। পার্থকে যখন বলতাম, পার্থ হাসতো আর  বলতো- পরীকে নিয়ে তোর বউ যেহেতু সন্দেহই করে, তাহলে আর সাধু থেকে লাভ কী। পরীও তো তোকে সরিয়ে দেবেনা। আমিও বিশ্বাস করতাম পরী আমাকে ডিনাই করবেনা। কিন্তু তবু পরীর প্রতি আমার আকর্ষনকে আমি নিজের মধ্যে জমিয়ে রাখতাম। হয়তো একবিছানায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে শুয়ে আছি আমি, লিমা আর পরী। আমার পা পরীর পায়ের উপর, আমার হাত লিমার মাথার নিচে। আমি দৃষ্টিতে পরীকে চাটছি, পরীও তার চোখের ভাষায় আমার কাছে তার শরীর মেলে দিয়েছে, কিন্তু তবু না। আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা এভাবে থেকেছি, তবু তখনও পর্যন্ত আমি পরীকে চুমু খাইনি। কিন্তু রাঙাদি বিশ্বাস করতো না। ফলে সে পরীকে কিছুটা এড়িয়ে চলতো। আমি যতো তাকে বলতাম পরীকে আমার চুমু খাওয়াও হয়নি, সে অবিশ্বাসের চোখে তাকাতো। অথচ লিমার সাথে যেদিন আমার প্রথম সেক্স হয় তার আগের দিন আমি রাঙাদিকে বলেছিলাম। সে বিশ্বাসই করেনি। পরদিন লিমার সাথে যখন আমি একরুমে, তখনও রাঙাকে জানালাম ফোন করে, সে বিশ্বাস করেনি। সেক্স করলাম, সেটাও বিশ্বাস করেনি। যাই হোক, এগুলো অনে গল্প। বলবো একে একে। রাঙা আর আমার কাহিনী নিয়ে লিখবো বলে একটা ব্লগ বানিয়েছিলাম। রাঙাদিদিকিন্তু বেশি কিছু লেখা হয়নি। ওখানে আর লিখবোনা আপাতত। মনে হলে অন্য সময় লিখবো। আপাতত এখানেই লিখবো।

 

248293_475256649182148_1314246984_n

প্রধান এই চরিত্রগুলো বাদে আরও কিছু কাহিনী আছে। সেগুলোর পাত্র-পাত্রী আলাদা। তাদের নাম এখানে লিখলাম না। পরে কখনো কোনো গল্প লিখলে তখন তাদের নাম বলবো। কেচ্ছা বলবো।

 

 

 

 

 

 

Comments
6 Responses to “আমার পরিচয়, আমাদের পরিচয়: বাসুদেব”
  1. Sadman বলেছেন:

    Accha ami jante chai porridge sathe ki apnar sharirik milon hoyeche?.

    Like

  2. Orko Chowdhury বলেছেন:

    পরী হল ভাসমান পাতলা মেঘের মতো, ধরতে গেলেই মিলিয়ে যায়।

    Like

Trackbacks
Check out what others are saying...
  1. […] আমার পরিচয়, আমাদের পরিচয়: বাসুদেব […]

    Like



বন্ধুরা, লেখাটি সম্পর্কে তোমার মন্তব্য লিখো..প্লিজ..: (ইমেইল এড্রেস জনসমক্ষে প্রকাশ করা হয় না।)

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s